সংবাদ শিরোনাম

আরও সংবাদ

2 Comments

  1. 1

    The Patriot

    The rapist must be decapitated in public – no other punishment, and it should be done immediately after the accused is caught and identified by the victim. NO JUSTICE NO PEACE – it is as simple as that.

    Reply
  2. 2

    The Patriot

    আমাদের বিচার বিভাগ :
    পৃথিবীতে সকল অশান্তি, অন্যায় এবং অপরাধের মূল কারণ হলো বিচারহীনতা!! আমাদের সামাজিক অবক্ষয়ের, রন্ধ্রে রন্ধ্রে দুর্বৃত্তায়নের, দুঃশাসনের একমাত্র কারণ হলো বিচারহীনতা। এ জন্যে কারা দায়ী? বিচারকের নামে অযোগ্য, অপদার্থ, অশিক্ষিত এবং নীতিনৈতিকতাহীন দুশ্চরিত্রবান, দলিয় কিছু গুন্ডাপান্ডাকে বসিয়ে সমস্ত বিচারবিভাগকে অমানবিকভাবে ধর্ষণ করানো হয়েছে গত বারোটা বছর ধরে! এই বিচারক নামের অদ্ভুতলিংগের প্রাণীগুলোকে কি করা উচিৎ? এদেরকে যারা পদায়ন করেছে তাদেরকেই বা কি করা উচিৎ? সকল বিচার হবে গণ আদালতে – অতি শীঘ্রই – ইনশাআল্লাহ।

    ভারতীয় আগ্রাসনের বিরুদ্ধে সংগ্রামরত স্বাধীনতা যুদ্ধের সৈনিক, আমার প্রিয় দেশপ্রেমিক, তরুণ-যুবক সন্তান-সন্ততিদের জ্ঞ্যাতার্থেঃ ফ্যাসিবাদিরা বুঝে গেছে এদেশের মানুষকে কি ভাবে ঘরের মধ্যে ঢুকিয়ে রাখা যায়!! প্রথমে লাগামহীন ভাবে দেশের অর্থ-সম্পদ লুটপাট করেছে, তারপর সেই অর্থ ব্যবহার করে সকল রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানের নিয়ন্ত্রণের যায়গাগুলোতে দেশপ্রেমিক, যোগ্য লোকজনকে সরিয়ে দলিয় অশিক্ষিত, সম্পুর্ণ অযোগ্য, গুন্ডা বাহিনীর লোকজনকে বসিয়েছে। অস্বাভাবিক রকম আর্থিক সুবিধা দিয়ে ঐসকল লোকজনকে ধিরে ধিরে এমন অবস্থায় নিয়ে গেছে যেন আর ফিরে আসতে না পারে – অতিরিক্ত সুবিধাভোগী পশুগুলোই এখন মরনপণ হয়ে সকল অত্যাচার, অনাচার, খুন, গুম করে পুরা দেশের মানুষকে জিম্মি করে ফেলেছে। ওদের প্রাণপণ প্রচেষ্টা হছে মানুষকে ঘর থেকে বের হতে না দেয়া! এতে রাষ্ট্রের প্রতিটি প্রতিষ্ঠান জড়িত – কারণ ওখানে তো কোনো সুস্থ স্বাভাবিক মানুষ অবশিষ্ট নেই! হয় মেরে ফেলেছে নাহয় গুম করেছে নয়তো ভয় ভিতি দেখিয়ে ওএসডি করে রেখেছে। ওদের এই সফলতার পিছনের কারিগর হলো ভারতীয় গোয়েন্দা বাহিনী। ওরা সফল হয়েছে, ভিষণ ভাবে সফল হয়েছে এদেশের মানুষকে ভয়ে ভীত-সন্ত্রস্ত করে হাত-পা গুটিয়ে ঘরের ভিতরে ঢুকিয়ে, অঘোষিত ভাবে বন্দী করে রাখতে! এই অবস্থা থেকে দেশকে মুক্ত করতে হলে জিহাদ বা পুর্নাঙ্গ আরেকটি মুক্তি যুদ্ধ ছাড়া কোনো উপায় নেই! অতএব, অত্যন্ত সুচিন্তিত, সুপরিকল্পিত এবং সংঘবদ্ধভাবে সামনে আগাতে হবে। দেশব্যাপি ঐক্যের কোনো বিকল্প নেই!! সকল পেশা, শ্রেণির আপামর জনসাধারণকে সম্পৃক্ত করে, যার যা কিছু আছে লাঠিসোঁটা তাই নিয়ে একযোগে, একসাথে রাস্তায় নেমে বসে পড়তে হবে! হামলা হলে চুড়ান্ত ভাবে প্রতিহত করতে হবে। সকল থানা, ফাড়ি ঘেরাও করে নিষ্ক্রিয় করতে হবে – তাহলেই শুধু সম্ভব হবে এদেশকে দেশদ্রোহী এসব নরপশুদের হাত থেকে রক্ষা করা। তোমরা এটা (Sit-in) করতে পারলে, ব্যারাক ভেঙে দেশপ্রেমিক সকল সেনা-পুলিশ সদস্যরা তোমাদের পাশে এসে দাড়াবে!! – এতে কোনো সন্দেহ নেই!! বিদেশে বসে এই গুঞ্জনটা আমরা জোড়ালো ভাবেই শুনতে পাচ্ছি! আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতাআ’লা তোমাদের সহায় হোন এবং চুড়ান্ত বিজয় দান করুন – আমিন।

    The rapist must be decapitated in public – no other punishment, and it should be done immediately after the accused is caught and identified by the victim and the same punishment should apply to a false accuser also who conspires to malign or destroy a person socially. NO JUSTICE NO PEACE – it is as simple as that.

    Reply

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

© স্বত্ব আমার দেশ ২০০৮ – ২০২০