সংবাদ শিরোনামগুলো
>>ডাকাত বা লুটেরারা বদমাইশ কিন্তু তাদের সর্দারনী নিষ্পাপ!>>শেখ হাসিনাও সৌজন্য শেখাচ্ছেন!>>শেখ হাসিনাকে ক্ষমা চাইতে বললেন মির্জা ফখরুল>>৪ মানবাধিকার সংগঠনের যৌথ বিবৃতি: গুমের শিকার ব্যক্তিদের পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দিন>>বিতর্কিত গণকমিশন ও ঘাদানিকের সাথে জড়িতদের আয়ের উৎস খুঁজতে দুদকে স্মারকলিপি>>লুটেরাদের ডলার লুটে টাকার মান কমল আরেক দফা>>আলেমদের বিরুদ্ধে তথাকথিত কমিশনের শ্বেতপত্র রাষ্ট্রদ্রোহিতা- সর্বদলীয় ওলামা ইউকে>>আওয়ামী লুটেরাদের ডলার লুট>>শেখ হাসিনার অধিনে কেউ ভোটে যাওয়ার চিন্তা করলে ভুল করবে-শামসুজ্জামান দুদু>>অবশেষে গডফাদার খ্যাত হাজী সেলিম কারাগারে: কতটা দ্রুততায় জামিন মঞ্জুর হয় সেটাই দেখার বিষয়

গুলিতে নিহত আলজাজিরার সাংবাদিকের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় ইসরায়েলি পুলিশের বর্বরতা

, ,

নিজস্ব প্রতিনিধি

পশ্চিম তীরে দখলদার ইসরাইলি বাহিনীর গুলিতে নিহত আল জাজিরার সাংবাদিক শিরিন আবু আকলার অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় অংশ নেয়া শোকাহত মানুষদের ওপর বর্বর হামলা করেছে ইসরায়েলি পুলিশ।

ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসের বাড়ির উঠোনে বৃহস্পতিবার তার অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার আয়োজন করা হয়। সেখানে তার কফিন ফিলিস্তিনি পতাকায় মুড়িয়ে আনা হয়।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা যায়, অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় সমবেতদের বেদম লাঠিপেটা করা হচ্ছে। ইসরাইলি পুলিশের হামলার সময় শোকাহত স্বজন-বন্ধুদের হাত থেকে নিহত সাংবাদিকের কফিনটি হেলে মাটিতে পড়ার উপক্রম হয়েছিল।

ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, হাসপাতাল কম্পাউন্ডে শিরিন আল আকলার কফিন ঘিরে দাঁড়িয়ে রয়েছে বর্বর ইসরায়েলি পুলিশ। এক পর্যায়ে সশস্ত্র পুলিশ সদস্যরা মানুষজনকে লাঠিপেটা শুরু করে এবং তাদেরকে সেখান থেকে সরিয়ে দেয়ার চেষ্টা করে। পুলিশের সদস্যরা তাদের লাঠিপেটা এবং লাথি মারতে দেখা যায়।

জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসের একজন মুখপাত্র বলেছেন, যেভাবে ইসরায়েলি নিরাপত্তা বাহিনী এবং ফিলিস্তিনিদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটছে, তাতে তিনি খুবই অস্বস্তি বোধ করছেন। সেই সঙ্গে কিছু পুলিশের আচরণেও তিনি বিরক্ত।

হোয়াইট হাউজের মুখপাত্র জেন সাকিও বলেছেন, শবযাত্রায় অংশ নেয়া মানুষের ওপর যেভাবে পুলিশ আঘাত করেছে, তা খুবই অস্বস্তিকর।

তিনি বলেছেন, একটি শান্তিপূর্ণ শবযাত্রা হওয়া উচিত ছিল, সেখানে এভাবে হস্তক্ষেপ করায় আমরা নিন্দা জানাচ্ছি।

ফিলিস্তিনি-আমেরিকান সাংবাদিক শিরিন আবু আকলা আল জাজিরা নিউজের হয়ে একজন যুদ্ধ সংবাদদাতা হিসাবে কাজ করছিলেন।

মাহমুদ আব্বাস তার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেছেন, তার হত্যার জন্য ইসরায়েল পুরোপুরি দায়ী। তিনি এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনাকে ইন্টারন্যাশনাল ক্রিমিনাল কোর্টে তুলবেন।

গত বুধবার জেনিন শরণার্থী শিবিরে কাজ করছিলেন শিরিন আবু আকলা। সেই সময় সেখানে অভিযান চালায় দখলদার ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী।

কাতার-ভিত্তিক টেলিভিশন নেটওয়ার্ক আল জাজিরা জানায়, ইসরায়েলি বাহিনী ‘ঠাণ্ডা মাথায়’ এবং ‘ইচ্ছেকৃতভাবে’ ৫১ বছর বয়সী শিরিন আবু আকলাকে গুলি করে। একই ঘটনায় তার প্রযোজকও গুলিবিদ্ধ হন।

জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের নিন্দা:

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরার ফিলিস্তিনি-আমেরিকান সাংবাদিক শিরিন আবু আকলাকে অধিকৃত পশ্চিম তীরে হত্যার ঘটনায় সর্বসম্মতভাবে নিন্দা জানিয়েছে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ।

ইসরায়েল সংশ্লিষ্ট বিষয়ে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের সর্বসম্মতভাবে নিন্দা জানিয়ে বিবৃতি দেওয়ার ঘটনা বিরল।

কূটনীতিকদের বরাতে আলজাজিরা জানায়, শিরিনের হত্যার বিষয়ে ‘একটি দ্রুত, পুঙ্খানুপুঙ্খ, স্বচ্ছ এবং নিরপেক্ষ তদন্ত’ করার আহ্বান জানানো হয়েছে বিবৃতিতে।

জাতিসংঘের হিউম্যান রাইটস অফিসও এ হত্যার পুঙ্খানুপুঙ্খ এবং স্বাধীন তদন্ত দাবি করেছে। তাদের মতে, এটি যুদ্ধাপরাধ হতে পারে।

অধিকৃত পশ্চিম তীরের জেনিন শরণার্থী ক্যাম্পে অভিযান চালানোর সময় সংবাদ সংগ্রহ করতে গেলে দখলদার ইসরায়েলি বাহিনীর গুলিতে নিহত হন শিরিন আবু আকলা। সংবাদ সংগ্রহ করতে যাওয়ার সময় তার মাথায় হেলমেট ও গায়ে ভেস্ট পরা ছিল যার মাধ্যমে বোঝা যাচ্ছিল তিনি সাংবাদিক।
গত বুধবার (১১ই মে) মার্কিন নাগরিক এই সাংবাদিক জায়োনিস্টদের গুলিতে নিহত হন।

One Comment

  • আবদুল কাইয়ুম শেখ বলেছেন:

    বর্বর এই হত্যাকাণ্ডের নিন্দা জানাই। ইসরাইিদের প্রতি ঘৃণা ও ধিক্কার জানাই।

Leave a Reply