সংবাদ শিরোনামগুলো
>>ডাকাত বা লুটেরারা বদমাইশ কিন্তু তাদের সর্দারনী নিষ্পাপ!>>শেখ হাসিনাও সৌজন্য শেখাচ্ছেন!>>শেখ হাসিনাকে ক্ষমা চাইতে বললেন মির্জা ফখরুল>>৪ মানবাধিকার সংগঠনের যৌথ বিবৃতি: গুমের শিকার ব্যক্তিদের পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দিন>>বিতর্কিত গণকমিশন ও ঘাদানিকের সাথে জড়িতদের আয়ের উৎস খুঁজতে দুদকে স্মারকলিপি>>লুটেরাদের ডলার লুটে টাকার মান কমল আরেক দফা>>আলেমদের বিরুদ্ধে তথাকথিত কমিশনের শ্বেতপত্র রাষ্ট্রদ্রোহিতা- সর্বদলীয় ওলামা ইউকে>>আওয়ামী লুটেরাদের ডলার লুট>>শেখ হাসিনার অধিনে কেউ ভোটে যাওয়ার চিন্তা করলে ভুল করবে-শামসুজ্জামান দুদু>>অবশেষে গডফাদার খ্যাত হাজী সেলিম কারাগারে: কতটা দ্রুততায় জামিন মঞ্জুর হয় সেটাই দেখার বিষয়

দখলদার ইসরায়েলি সেনাদের গুলিতে আল-জাজিরা সাংবাদিক নিহত

, ,

নিজস্ব প্রতিনিধি

ফিলিস্তিনের পশ্চিমতীরে দখলদার ইসরাইলের সেনাদের গুলিতে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরার এক সাংবাদিক গুলিতে নিহত হয়েছেন। তার নাম শিরীন আবু আকলেহ। এসময় ফিলিস্তিনের স্থানীয় একটি পত্রিকায় কর্মরত আলি সামুদি নামে এক সাংবাদিকও গুলিবিদ্ধ হন। তারা তখন এসাইনমেন্ট কাভার করতে দায়িত্ব পালনরত অবস্থায় ছিলেন।
তবে বরাবরের মতই ইসরাইলের সেনাবাহিনীর এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে উভয়পক্ষের গোলাগুলির সময় ক্রসফায়ারে ওই সাংবাদিক নিহত হয়ে থাকতে পারেন।

এদিকে ফিলিস্তিনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এবং আল-জাজিরা জানিয়েছে, পশ্চিমতীরের জেনিন শহরে ইসরায়েলের অভিযান কাভার করছিলেন শিরীন। এ সময় ইসরাইলি সেনাদের গুলিতে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন তিনি। তাকে গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন। বুধবার আল-জাজিরার খবরে এই তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে।

আল-জাজিরার খবরে সাংবাদিক নিদা ইব্রাহিম বলেছেন, কি অবস্থায় শিরীনের মৃত্যু হয়েছে তা পরিষ্কার না। তবে ঘটনার ভিডিওতে দেখা যায় তার মাথায় গুলি লেগেছিল।

ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরে রামাল্লা থেকে নিদা ইব্রাহিম আরও বলেন, আমরা এখন জানতে পারছি ফিলিস্তিনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় তাকে মৃত ঘোষণা করেছে। শিরীন ইসরায়েলের দখলকৃত পশ্চিমতীরের উত্তরের জেনিন শহরে ইসরায়েলি সেনাদের অভিযান কাভার করছিলেন। তখন তার মাথায় গুলি লাগে। শিরীনের সঙ্গে কাজ করা সাংবাদিকদের জন্য এটা এক ভয়াবহ অভিজ্ঞতা। এ ঘটনার পর তার সঙ্গে কাজ করা অন্য সাংবাদিকরাও আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়েছেন।

কান্নাজড়িত কণ্ঠে তিনি আরও বলেন, শিরীন খুব সম্মানিত একজন সাংবাদিক ছিলেন। ২০০০ সালে ফিলিস্তিনের দ্বিতীয় ইন্তিফাদার (জাগরণ) শুরু থেকে তিনি আল-জাজিরার সঙ্গে কাজ করছিলেন।

গুলিবিদ্ধ হওয়ার সময় প্রেস ভেস্ট পরা ছিলেন শিরীন। তার সঙ্গে থাকা আরেক ফিলিস্তিনি সাংবাদিকও গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। তবে তিনি আশঙ্কামুক্ত রয়েছেন। আলি সামুদি নামের ওই সাংবাদিক জেরুজালেমভিত্তিক গণমাধ্যম কুদসে কাজ করেন।
ইসরাইলি সামরিক বাহিনী জানিয়েছে, তাদের উপরে ভারি অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে ফিলিস্তিনিরা হামলা চালালে তারা পাল্টা হামলা করতে বাধ্য হয়। পুরো বিষয়টি নিয়ে একটি তদন্ত চালু করা হয়েছে। তবে রামাল্লায় আল-জাজিরার ব্যুরো চিফ ওয়ালিদ আল-ওমারি জানান, ফিলিস্তিনি পক্ষ থেকে কোনো গুলির ঘটনা ঘটেনি। ইসরাইল যে সম্ভাবনার কথা বলছে সেটিকে উড়িয়ে দেন তিনি।

আল-জাজিরার সাংবাদিক নিহতের খবরে শোক ও ক্ষোভ জানিয়েছেন অনেক ফিলিস্তিনি। বৃটেনে নিযুক্ত ফিলিস্তিনি দূত হুসাম জমলট বলেন, ইসরাইলি দখলদার বাহিনী আমাদের প্রিয় সাংবাদিক শিরীন আবু আকলেহকে হত্যা করেছে। শিরীন ছিলেন সবথেকে আলোচিত ফিলিস্তিনি সাংবাদিক এবং কাছের বন্ধু। তিনি পরিচিতদের মধ্যে সাহসী ও দয়ালু হিসেবে পরিচিত ছিলেন।

 

Leave a Reply