সংবাদ শিরোনামগুলো
>>ডাকাত বা লুটেরারা বদমাইশ কিন্তু তাদের সর্দারনী নিষ্পাপ!>>শেখ হাসিনাও সৌজন্য শেখাচ্ছেন!>>শেখ হাসিনাকে ক্ষমা চাইতে বললেন মির্জা ফখরুল>>৪ মানবাধিকার সংগঠনের যৌথ বিবৃতি: গুমের শিকার ব্যক্তিদের পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দিন>>বিতর্কিত গণকমিশন ও ঘাদানিকের সাথে জড়িতদের আয়ের উৎস খুঁজতে দুদকে স্মারকলিপি>>লুটেরাদের ডলার লুটে টাকার মান কমল আরেক দফা>>আলেমদের বিরুদ্ধে তথাকথিত কমিশনের শ্বেতপত্র রাষ্ট্রদ্রোহিতা- সর্বদলীয় ওলামা ইউকে>>আওয়ামী লুটেরাদের ডলার লুট>>শেখ হাসিনার অধিনে কেউ ভোটে যাওয়ার চিন্তা করলে ভুল করবে-শামসুজ্জামান দুদু>>অবশেষে গডফাদার খ্যাত হাজী সেলিম কারাগারে: কতটা দ্রুততায় জামিন মঞ্জুর হয় সেটাই দেখার বিষয়

মাহিন্দা রাজাপাক্সেসহ দুর্নীতিবাজদের দেশ ছাড়তে নিষেধাজ্ঞা

, ,

নিজস্ব প্রতিনিধি

গণঅভ্যূত্থানে পদত্যাগের পর আত্মগোপনে থাকা শ্রীলঙ্কার সাবেক প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপাক্সে ও তার পরিবার দেশ ছাড়তে পারবে না। তাদের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে দেশটির একটি আদালত।

সরকার বিরোধী বিক্ষোভকারীদের উপর নিজ দলীয় ক্যাডারদের দিয়ে সহিংস হামলা চালালে রাস্তায় বের হয়ে আসেন দেশটির জনগণ। জনবিস্ফোরণের মুখে প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দেওয়ার পর তাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। জনরোষ থেকে বাঁচাতে তাকে গোপন স্থানে রাখা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

বার্তাসংস্থা এএফপির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বৃহস্পতিবার (১২ মে) শ্রীলঙ্কার একটি আদালত রাজাপাক্সে ও তাঁর ১৫ জন সহযোগির বিরুদ্ধে দেশ ছাড়তে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

একইসঙ্গে গত ৯ মে শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবনের সামনে টেম্পল ট্রিজে সরকারবিরোধী বিক্ষোভকারীদের উপর হামলার ঘটনা তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। ওই সংঘাতের জেরেই পুরো শ্রীলঙ্কা বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে উঠেছিল।

আদালতের এক কর্মকর্তা জানান, আদালতে সাবেক প্রধানমন্ত্রী রাজাপাক্সে ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানাও চাওয়া হয়েছিল। তবে যে কোনো সন্দেহভাজনকে আটক করার ক্ষমতা পুলিশের হাতে আছে উল্লেখ করে এ আবেদন নাকচ করে দিয়েছেন ম্যাজিস্ট্রেট।

গত সোমবারের সহিংসতার শিকার ব্যক্তিরা বলছেন, রাজাপাক্সে ও তার সহযোগীরা নিজেদের ৩ হাজারের বেশি ক্যাডার রাজধানীতে নিয়ে আসে। শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকারীদের উপর হামলা করতেই তাদেরকে রাজধানীতে আনা হয়েছিল। এ ছাড়া, রাজাপাক্সের অনুসারীরা তার বাসভবন থেকে লাঠি-সোটা নিয়ে বেরিয়ে এসে বিক্ষোভকারীদের উপর হামলা চালিয়েছিল। হামলার পর অন্তত ২২৫ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এই হামলার ঘটনার পর বিক্ষোভ জনবিস্ফোরণে রূপ নেয়। এক পর্যায়ে গত সোমবার প্রধানমন্ত্রীর পদ ছাড়তে বাধ্য হন মাহিন্দা রাজাপাক্সে। তাতেও অবশ্য জনরোষ কমেনি। ওই রাতেই হাজারো বিক্ষোভকারী কলম্বোয় রাজাপাক্সের বাসভবনের মূল ফটক ভেঙে ভেতরে ঢুকে পড়েন। এক পর্যায়ে ভোরের আলো উঠার আগেই সেনা পাহারায় কলম্বোর সরকারি বাসভবন থেকে তাকে সরিয়ে নেওয়া হয়।

লঙ্কান প্রতিরক্ষা বাহিনী ও রাজপাক্সের পরিবারের সদস্যদের দাবি, দেশটির উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় ত্রিঙ্কোমালি শহরে একটি নৌঘাঁটিতে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে আশ্রয় নিয়েছেন তিনি। এমন খবরে ওই নৌঘাঁটিও ঘিরে রেখেছেন বিক্ষোভকারীরা। রাজাপাক্সের ভাই ও দেশটির প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসের পদত্যাগের দাবিও তুলেছেন দেশটির বিক্ষুব্ধ জনতা।

শ্রীলঙ্কায় ব্যাপক বিক্ষোভ-বিশৃঙ্খলার মধ্যে সরকার সমর্থক এবং বিরোধীদের সংঘর্ষের ফলে কমপক্ষে নয়জনের প্রাণহানি ঘটেছে। আহত হয়েছে বহু মানুষ।

উল্লেখ্য প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগের পর কলম্বোর বন্দরনায়েক আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে যাতায়াতের পথে বিক্ষুব্ধ জনতা গণকারফিউ জারি করেছে। রাজাপাক্সে ও তাঁর সহযোগি দুর্নীতিবাজ লুটেরা রাজনীতিকরা যাতে দেশ ছাড়তে না পারেন সে লক্ষ্যেই বিমানবন্দরের পথে গণকারফিউ দিয়েছে জনতা। যদিও কলম্বোর আকাশে অনেক হেলিকপ্টার উড়তে দেখা গিয়েছে। যা দেখে গুঞ্জন শুরু হয়েছে, আকাশপথেই দেশ ছাড়ছেন রাজাপাকসের পরিবার ও অন্যরা।

Leave a Reply