সংবাদ শিরোনাম

আরও সংবাদ

2 Comments

  1. 1

    জাহিদ

    এম পি নিক্সন একজন প্রতিস্ঠিত চাঁদাবাজ ও খুনী। তার প্রথম স্ত্রীকে বহুতল ভবন থেকে ধাক্কা মেরে ফেলে হত্যা করেছিলেন, প্রধানমন্ত্রীর আত্মীয় হওয়ার কারনে সে হত্যার কোন বিচার হয় নাই। বনানীতে চাদাবাজীর জন্য তার টর্চারসেলের খবর কমবেশী সবাই জানে। একজন সন্ত্রাসী যখন সাংসদ হয় তখন ডিসি, ইউ ও নো কে গালাগাল করবে এটা নিক্সনের জন্য স্বাভাবিক ব্যাপার।

    Reply
  2. 2

    রেহমান আলীয়াচ

    ঢাকায় দিল্লীর পতনের পর, এই কথিত চাঁদাবাজ নিক্সন চৌধুরী যেন দেশ ছেড়ে পালাতে না পারে সেদিকে সজাক দৃষ্টি রাখতে হবে। এই গাইড়পাঁকা নিক্সন চৌধুরীর প্রথম স্ত্রী মুনৃতারিনের মৃত্যুরহস্য ও পারিবারিক কিছু তথ্য আমার দেশ পাঠকদের জানার জন্যে দেওয়া হলো-

    ২০১৪ সালের ২৯ এপ্রিল রাতে মুনৃতারিনের রহস্যজনক মৃত্যু হয়, তবে ৩০ এপ্রিল চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
    মুনতারিন চৌধুরীর মৃত্যুর পর ভিন্ন ভিন্ন তথ্য উঠে আসে। সাংসদের পরিবারের পক্ষ থেকে প্রথমে বলা হয়েছিল “হার্টএটাক”। পরে দাবি করা হয় “গুলশান ২-এর ৭৬ নম্বর রোডের ২০ নম্বর বাসার চারতলার বারান্দা থেকে পিছলে নিচে পড়ে যান মুনতারিন। বাইরে তখন ঝড় হচ্ছিল। পড়ে যাওয়ার সময় পেছনে ছিল তাঁর একমাত্র মেয়ে এবং গৃহকর্মী”।

    সেইসময় অভিযোগ ওঠে, স্বামী-স্ত্রীর পারিবারিক কলহের একপর্যায়ে মুনতারিন পাঁচতলা বাসভবনের ছাদ থেকে লাফ দেন। আশঙ্কাজনক অবস্থায় ইউনাইটেড হাসপাতালে নেওয়া হলে তাঁর মৃত্যু হয়।
    ১৯৭৮ সালে জন্ম নেওয়া নিক্সন চৌধুরী ও মুনতারিনের দাম্পত্য জীবন ছিল ১৮ বছরের। মুনতারিন অষ্টম শ্রেণীতে পড়ার সময় নিক্সনের সাথে বিয়ে হয়। প্রথম স্ত্রীর মৃত্যুর ২ বছর পর ২০১৬ সালের জুলাই মাসে তৎকালীন পরিবেশ ও বনমন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জুর মেয়ে, বর্তমানে দৈনিক ইত্তেফাকের অন্যতম কর্ণধর তারিন হোসেনকে বিয়ে করেন নিক্সন। নিক্সন তখন পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ছিলেন। তাদের দুজনেরই দ্বিতীয় বিয়ে এটি। তাদের দুজনের আগের সংসারে একটি মেয়ে ও একটি ছেলে রয়েছে।

    নিক্সন চৌধুরী শেখ মুজিবুর রহমানের বড় বোনের নাতি। নিক্সন সংসদের চিফ হুইপ নুর এ আলম চৌধুরী লিটনের আপন ভাই।

    Reply

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

© স্বত্ব আমার দেশ ২০০৮ – ২০২০