সংবাদ শিরোনাম

আরও সংবাদ

One Comment

  1. 1

    The Patriot

    অত্যাচারী শক্তির উৎস হচ্ছে ওদের নিজস্ব সৃষ্ট কিছু অতিরিক্ত সুবিধাভুগী লাঠিয়াল বাহিনী আর এদের প্রধান হচ্ছে বৈধ অস্ত্রধারী পুলিশ! পুলিশের সহযোগিতা ছাড়া কোনো বাহিনীই কিছু করার সাহস বা ক্ষমতা রাখেনা। এই পুলিশের মধ্যেই যারা অতি উৎসাহিত হয়ে ছাত্রজনতার বিরুদ্ধে দাড়াচ্ছে ওরাই হাসিনার মত নরপশুদের রক্ষক!! ওদের ছত্রছায়ায় অন্য সব বাহিনী, হাতুড়ি, হেলমেট, লগিবইঠা ইত্যাদিরা সব অপকর্মগুলো করে। এই পুলিশের মধ্যে যারা ভালো সেজে চুপকরে বসে থেকে অন্যায়কারী পুলিশের বিরুদ্ধে কিছু বলছে না বা করছেনা তারাও সমান দোষী! অতএব, এই হারামজাদা পুলিশকে থামানো গেলেই মূল লক্ষ্য হাসিল হয়ে যাবে!! পুলিশ প্রতিহত করাই এখন একমাত্র কাজ হওয়া উচিত সকলের।

    দলমত নির্বিশেষে সকলকে একজোট হয়ে রাস্তায় নেমে জোরালো কন্ঠে পুলিশ নামের অবৈধ হাসিনার গুন্ডা বাহিনীকে জানাতে হবে যে – দেশদ্রোহী ওরাই যারা সম্পুর্ণ অবৈধ একটি সরকারকে রক্ষার জন্যে ন্যায়ের পক্ষে সংগ্রামরত সাধারণ ছাত্র-জনতার বিরুদ্ধে দাড়াচ্ছে! দেশদ্রোহীতার জন্যে অচিরেই বিচারের কাঠগড়ায় দাড়াতে হবে ওদের। শক্ত হাতে প্রতিহত করতে হবে এই পুলিশ নামের দুর্বৃত্তদের। এরা দেশদ্রোহী অমানুষ।

    দাবী এখন একটিই – সম্পুর্ন অবৈধভাবে জেঁকেবসা ভারতীয় দালাল এবং গুন্ডা বাহিনী গঠিত এই অপশাসক, দেশদ্রোহী চক্রের সর্বনাশা চক্রান্তের হাত থেকে দেশকে মুক্ত করা। কোন রাখঢাক নয়, টু-দ্যা-পয়েন্ট, একমাত্র দাবী – অবৈধ সরকার নামক হারামজাদাদেরকে নির্মুল করা। only slogan – OUST THE TRAITOR BASTARDS!!

    Reply

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

© স্বত্ব আমার দেশ ২০০৮ – ২০২০